মুক্তি পেয়েই সাড়া জাগিয়েছে ‘আব্বাস’

134

মিডিয়ামেইল : আজ শুক্রবার (৫ জুলাই) দেশব্যাপী মুক্তি পেয়েছে চলচ্চিত্র ‘আব্বাস’।পুরান ঢাকার আবহে নিরীক্ষা চালিয়েছেন পরিচালক সাইফ চন্দন। সেই গল্প নিয়ে নির্মাণ করেছেন ‘আব্বাস’। এতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন নিরব হোসেন। চলচ্চিত্রে নিরবের মেজাজী লুক ইতিমধ্যে দর্শক আকর্ষণে সফল হতে শুরু করেছে। বহুদিন পর গল্পনির্ভর চলচ্চিত্র প্রদর্শনে প্রেক্ষাগৃহগুলো সরব হয়ে উঠেছে। বলা যায়, সিনেমা হলে সাড়া জাগিয়েছে ‘আব্বাস’।

এ প্রসঙ্গে মধুমিতার সুপাইভাইজার জাহিদুল ইসলাম মিডিয়ামেইলকে বলেন, ‘দর্শক ভিন্ন কিছু খুঁজছিল যে গল্পে নিজেকে কল্পনা করবে মনে হচ্ছে আব্বাস তেমন গল্প নিয়ে তৈরি। দর্শক চলচ্চিত্রটির ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে আজ হলে ভিড় করেছে। নিরবের লুক আর অ্যাকশন নিয়ে ইতিবাচক কথাও বলছে অনেকে। খলচরিত্রে জয়রাজের অভিনয়েও মুগ্ধতা প্রকাশ করেছেন। দর্শক আগ্রহের কথা মাথায় রেখে দর্শকদের আমরাও সেবা দিয়ে যাচ্ছি।

‘নিরবের মধ্যে পুরান ঢাকার মাস্তান চরিত্রটা ফুটে উঠেছে। চলচ্চিত্রটি দেখে দর্শক এমনটাই বলেছেন। পাশাপাশি একঘেঁয়ে থেকে বাঁচাতে আব্বাসের মতো প্রডাকশন প্রয়োজন ছিল এ মুহূর্তে। এমন চলচ্চিত্রের ধারাবাহিকতা দরকার, তাহলে নিরব বা সিয়ামের মতো নায়করা দাঁড়াতে পারবে। ইন্ডাস্ট্রিতে একক আধিপত্যও দূর হবে’-বলছেন রানী মহলের এক কর্মকর্তা।

জিঞ্জিরার নিউ গুলশান সিনেমা হল মালিক আমির হামজা মিডিয়ামেইলকে বলেন, ‘চলচ্চিত্র প্রদর্শন করতে হয় বলে করে যাচ্ছি। কিন্তু মুক্তি পাওয়ার পর আব্বাসকে নিয়ে দর্শকের মাঝে আলাদা রেসপনস পেয়েছি। এতটুকু বুঝতে পেরেছি দর্শক ভিন্ন কিছু দেখতে চায়, যা সে এই চলচ্চিত্রে মধ্যে পেয়েছে বলে অনেক দর্শকেই আমাকে বলেছে।’

চলচ্চিত্রটির গল্পে দেখা যায়, পুরান ঢাকার অনাথ এক ছেলের নাম আব্বাস। পিতৃ-মাতৃহীন জীবন তার। আজ এখানে তো কাল ওখানে কেটে যায় তার দিনগুলো। যত্ন নেই, স্নেহ-মমতা নেই। নির্ঘুম ও অনাহারে অনিশ্চিত এক ভবিষ্যতের অপেক্ষায় বেঁচে থাকা তার। হঠাৎ একদিন পড়ে যায় ভয়ঙ্কর এক চক্রের হাতে। সেখানে আশ্রয়ে প্রশ্রয়ে বেড়ে ওঠা আব্বাস এক সময় এলাকার ত্রাস বনে যায়। এমন এক গল্পে নির্মিত হয়েছে অ্যাকশন-রোমান্টিক ঘরানার চলচ্চিত্র ‘আব্বাস’।

আজ  সারাদেশের ৩৭টি সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছে এটি। চলচ্চিত্রে নিরবের বিপরীতে রয়েছেন সোহানা সাবা। চলচ্চিত্রটি প্রসঙ্গে নিরব বলেন, ‘গল্প গাঁথুনী ও সংলাপে সাইফ চন্দনও আগেও মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন। এখনতো তিনি এই চলচ্চিত্রে আমাকে একেবারে ভিন্নভাবে উপস্থাপন করেছেন। খলঅভিনেতা জয়রাজ বলেন, ‘চলচ্চিত্রে আব্বাসরূপী নিরবের গডফাদার হিসেবে কাজ করেছি। আমি খুশি যে চরিত্রবিন্যাসে নিজের জায়গায় যথেষ্ট স্বাধীনতা নির্মাতা চন্দন আমাকে দিয়েছেন। সুযোগ পেয়ে নিজেকে উজার করে দেওয়ার চেষ্টা করেছি।’

চলচ্চিত্রটিতে আরও অভিনয় করেছেন আলেকজান্ডার বো, সূচনা আজাদ, জয়রাজ, ডন, শিমুল খান, ইলোর গহর প্রমুখ। ভিন্ন রকম এক নিরবকে দেখা গেছে চলচ্চিত্রটিতে। ঢাকাইয়া লুক ও দুর্দান্ত অ্যাকশন দেখিয়েছেন এই অভিনেতা। আলোচনায় এসেছে তার মুখের সংলাপ ‘এই শহরে ২০ বছর ঘুমায় না আব্বাস’। অভিনেত্রী সোহানা সাবাকে দেখা যায় ভয়ঙ্কর আব্বাসের প্রেমিকার চরিত্রে।